শাহ আমানত সেতুতে ফাস্ট ট্রাক পদ্ধতির উদ্ধোধন

কাউছার আলম, পটিয়াঃ
সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের উদ্যোগে চট্টগ্রামের শাহ আমানত সেতুতে ফাস্ট ট্রাক ( টোল কালেকশন সিস্টেম) পদ্ধতির শুভ উদ্ধোধন করেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

উদ্ধোধনের সময় সেতুর ইজারাদার কতৃপক্ষের ইউডিসি-ভ্যান জেভি’র তিনটি নিজস্ব গাড়ি ফাস্ট ট্রাক পদ্ধতিতে টোল প্লাজা অতিক্রম করলেও সারাদিন আর কোন গাড়ি এ পদ্ধতিতে আসা যাওয়া করতে চোখে পড়েনি।

ফাস্ট ট্রাক সিস্টেম কিঃ

ফাস্ট ট্রাক (টোল কালেকশন সিস্টেম) এ নতুন টোল সিস্টেমটির মাধ্যমে নগদহীন টোল সংগ্রহ করতে চালকদের সহায়তা করবে পাশাপাশি এক্সপ্রেসওয়ে টোল গেইটে যানজট নিরসনে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

ফাস্ট ট্রাক সিস্টেমের উদ্দেশ্যঃ

এ সিস্টেমের ফলে কোন যানবাহনকে টোল সারিতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হবে না। পর্যটক বহনকারী যানবাহনের সময় অনায়াসে এ সিস্টেমের মাধ্যমে দ্রুত টোল প্লাজা অতিক্রম করতে পারবে। অবৈধ ভাবে টোল প্লাজায় প্রবেশের সংখ্যা ও অনেকাংশে কমে যাবে। এছাড়াও স্বচ্ছ ও নির্ভুল টোল আদায়ের শতভাগ নিশ্চিতা করবে।

কিভাবে ডিজিটাল পেমেন্টর মাধ্যমে টোল ফি পরিশোধ করবেঃ

এ পদ্ধতিতে একজন চালককে ডিজিটাল পেমেন্টের জন্য অবশ্যই বিআরটিএ অনুমোদিত সচল RFID ট্যাগ থাকতে হবে। ডাস বাংলা ব্যাংকের একটি রকেট মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট থাকা লাগবে। যারা এ পদ্ধতি অনুসরণ করবে তাদের জন্য মোবাইলের প্লে স্টোর থেকে নেক্সাসপে অ্যাপ্স টি আগে ইনস্টল করতে হবে। এবং রকেট একাউন্টটি নেক্সাসপে অ্যাপ্লিকেশন টি আগে নিবন্ধন করতে হবে।

কিভাবে নেক্সাসপে অ্যাপলিকেশনটি ব্যাবহার করবেঃ

প্রথমে প্লে স্টোর হতে ডাউনলোড করা নেক্সাসপেতে ঢুকে মেনুবারে সিলেক্ট করতে হবে। এরপর অ্যাপসটি লগইন করে টোল কার্ড সিলেক্ট করতে হবে। তখনই রকেট কাডে চালকের নাম ও গাড়ি নাম্বার চলে আসবে। তারপর সিলেক্ট করতে হবে এড ভিকেলে এরপর ভিকেল ম্যানেজম্যান্ট সিলেক্ট করতে হবে আর তাতেই চলে আসবে টোল প্লাজায় আসা যানবাহনটির মালিকের নাম গাড়ি নাম্বার সেসিস নাম্বার গাড়ির ব্লু বুকের ছবি সহকারে আপলোড করার পর সর্বশেষ সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে।

কিভাবে রকেট টোল কার্ড রিচার্জ করা যাবেঃ

উপরের অংশে উল্লেখিত সাবমিট বাটনে ক্লিক করলেই নয় নং সিরিয়ালের টোল কার্ডে ক্লিক করলেই আসবে রিচার্জ টোল কার্ডে তিন নং সিরিয়ালে ক্লিক করতেই পে হয়ে যাবে নির্ধারিত টোল এরপর অটোমেটিক ইলেকট্রনিক বারটি উটে গিয়ে দ্রুত যান চলাচলে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

জানা যায়, এ পদ্ধতি পরিক্ষামুলক ভাবে চালু করা হয়েছে আগে মেঘনা সেতুতে। তার ধারাবাহিকতায় শাহ আমানত সেতুতে ও পদ্ধতি চালু করা হয়েছে।

তবে এ নিয়ে চালক ও পরিবহন মালিকদের মধ্যে তেমন একটা উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা যায় নি।

আজ সকাল দশটার পর ফাস্ট ট্রাক সিস্টেমের উদ্ধোধনের পর সরেজমিনে টোল প্লাজায় দিয়ে চালকদের সঙ্গে কথা বললে তারা এ পদ্ধতি সম্পর্কে কোন ধরনের তথ্য পাননি বলে জানান। যদিও ৩ ও ৪ নং কাউন্টারটি ব্যানার ফেস্টুন লাগিয়ে চালকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য কতৃপক্ষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

কর্ণফুলি সেতুর দক্ষিণ পাশ হতে শহরের দিকে যাওয়া ট্রাক ড্রাইভার নাছির কে এ পদ্ধতি সম্পর্কে প্রশ্ন করলেই সে জানায়, আজ এ প্রতিবেদকের কাছে শুনেছে এর আগে শুনেননি তিনি।

মাইক্রো বাসের চালক বেলাল কার চালক ইসমাইল ও এ পদ্ধতি সম্পর্কে জানেনা বলে জানান।

তবে এ পদ্ধতিতে যুগোপযোগী ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের পথচলা আরো এগিয়ে যাবে বলে মনে করেছেন যাত্রীরা।

ফাহাদ ইসলাম নামের একজন যাত্রী জানান, এ সিস্টেম চালু হলেই দ্রুত যাতায়াতের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করবে সময় ও বাঁচবে।

কথা হয় টোল প্লাজার সহকারী এডমিন অফিসার মাঈন উদ্দীন সুমনের সাথে। সে জানায়, রোডস এন্ড হাইওয়ের মাধ্যমে আজকের ফাস্ট ট্রাক পদ্ধতিটি বিভিন্ন ভাবে প্রচার করার মাধ্যমে সবাইকে উদ্ধুদ্ধ করা হবে।

এ ব্যাপারে ইজারাদার কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ কোম্পানি ইউডিসি-ভ্যান জেভি’র অপারেশন ডাইরেক্টর অপূর্ব সাহা চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ম্যানুয়ালি টোল আদায় করতে প্রচুর সময়ক্ষেপণ হতো। ফাস্টট্র্যাক পদ্ধতিতে টোল আদায়ে সময় প্রয়োজন হবে মাত্র দুই সেকেন্ড। পাল্টে যাবে শাহ আমানত সেতুর টোলপ্লাজার দৃশ্যপট।

তিনি আরো জানান, গাড়ির গ্লাসে থাকা রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আইডেনটিফিকেশন বা আরএফআইডি ট্যাগের সঙ্গে টোল গেটের অ্যানটেনার সংকেতের মাধ্যমে টোল আদায় হবে। গাড়ি টোলপ্লাজা পার হওয়ার সাথে সাথে গাড়িওয়ালার রকেট একাউন্ট থেকে টোলের টাকা সেতু কর্তৃপক্ষের হিসাবে চলে আসবে। রকেট একাউন্টে টাকা না থাকলে জরিমানা গুণতে হবে। জরিমানা এড়াতে রকেট হিসেবে টোলের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা রাখতে হবে।

তবে এ পদ্ধতিতে শুধুমাত্র গাড়ির ডিজিট্যাল নম্বর প্লেটধারী এবং নির্দিষ্ট একটি ফরম পূরণ ও রকেট মোবাইল একাউন্ট খুলতে হবে বলেও জানা অপূর্ব সাহা।

প্রসঙ্গত, ইতোপূর্বে মেঘনা সেতুতে পরীক্ষামূলকভাবে এ পদ্ধতি চালু করা হয়েছিল। চট্টগ্রামে এই পদ্ধতি প্রথম এবং সারাদেশে দ্বিতীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here