রাঙ্গুনিয়ায় ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমকে কেন্দ্র করে তুমুল সংঘর্ষ

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি:
রাঙ্গুনিয়ায় ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেম খেলাকে কেন্দ্র করে হামলায় আহত হয়েছে শিশু, নারী ও পুরুষসহ ৮ জন। উপজেলার হোছনাবাদ ইউনিয়নের দক্ষিণ নিশ্চিন্তাপুর রোসাইপাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন ওই এলাকার মৃত ইছহাকের ছেলে আলাউদ্দিন (৩২), তার বড় ভাই মোহাম্মদ আলম (৪০), ভাইপো মুজিবুল ইসলাম (১৭), আরিফুল ইসলাম হৃদয় (১৮), ভাগিনা ফয়সাল মাহমুদ (১৮), স্থানীয় আরিফুল ইসলামের স্ত্রী শামীমা আক্তার (৩৮), মোহাম্মদ জাফরের স্ত্রী জাহেদা বেগম (৪২), আহত আলাউদ্দিনের স্ত্রী মুক্তা বেগম (২৫)।

তাদেরমধ্যে আলাউদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। বাকীরা রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রসহ স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন। এই ঘটনায় ৩০ এপ্রিল ৯ জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, গত ২৯ মে রাত সাড়ে ৯টার দিকে আহত ফয়সাল ও হৃদয় নিশ্চিন্তাপুর ব্রীজের পাশে বসে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেম খেলছিল। এসময় হোছনাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চৌকিদার স্থানীয় কবির আহাম্মদের ভাগিনা সাইফুদ্দিন (১৮) এসে তার গেমের সফটওয়ার হ্যাক হয়েছে দাবী করে এই দু’জনকে অভিযুক্ত করে। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে মারামারির সুত্রপাত হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে চৌকিদার কবির আহাম্মদ, তার ভাই করিম ও ছেলে আনোয়ার হোসেনসহ ২০/২৫ জন দেশীয় অস্ত্রহাতে ছুটে আসে। খবর পেয়ে অপর পক্ষও আসলে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে চৌকিদারের পরিবারের হামলায় আহত হয় ৮ জন। তাদের বাঁচাতে গিয়ে স্থানীয় বেশ কয়েকজনও আহত হয়েছেন বলে জানা যায়।

এদিকে চৌকিদার কবির আহাম্মদের পরিবারকে এলাকায় অবাঞ্চিত ঘোষণা করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে দক্ষিণ নিশ্চিন্তাপুর এলাকাবাসী। সোমবার (৩১ মে) সকালে নিশ্চিন্তাপুর সড়কের দক্ষিণ নিশ্চিন্তাপুর এলাকায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে অংশ নেন চন্দ্রঘোনা অটোরিকশা চালক সমবায় সমিতি ও দক্ষিণ নিশ্চিন্তাপুর রোসাইপাড়া প্রবাসী পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধন শেষে সমাবেশে চৌকিদার কবির আহাম্মদের পরিবার বাঁশখালী থেকে আসা বহিরাগত পরিবার দাবী করে তারা এলাকায় বিভিন্ন ছোটখাটো ইস্যুতে প্রায়ই মারামারির ঘটনা ঘটায় বলে জানায় আন্দোলনকারীরা। তাই তাদের এলাকায় অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হয় এবং এই হামলার ঘটনায় তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানানো হয়।

সমাবেশে বক্তব্য দেন স্থানীয় মোহাম্মদ লোকমান, মঈন উদ্দিন মঈনু, ইয়াকুব বাদশা, আহাম্মদ মিয়া, খুরশেদ আলম, মাসুদ পারভেজ, মুহাম্মাদ আলী শাহ, মোহাম্মদ বাদশা, মুহাম্মাদ ফারুক, আলী আহাম্মদ প্রমুখ। মানববন্ধনে ওই দুই গেমের আসক্তি নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয় এবং অচিরেই এই গেমগুলো যেন বন্ধ করে দেওয়া হয় সেই দাবী জানানো হয়। এই বিষয়ে হোছনাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মির্জা সেকান্দর হোসেন বলেন, “গেম খেলাকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনার বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here