বোয়ালখালী হাসপাতালে দীর্ঘ ৪ বছর পর প্রসূতি মায়ের সিজার অপারেশন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
দীর্ঘ ৪ বছর পরে বোয়ালখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিজারিয়ান অপারেশন থিয়েটার চালু হয়েছে। এর ফলে উপজেলার মানুষ সল্প খরচে সরকারি হাসপাতালে গর্ভবতী নারী সিজারিয়ান সুবিধা পাবে।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে প্রসুতি মায়ের সিজারের মাধ্যমে এ অপারেশন থিয়েটার যাত্রা শুরু করে।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালটেন্ট(গাইনী) ডাঃ স্মিতা মুহুরী এবং মেডিকেল অফিসার ডাঃ কান্তা অধিকারীর তত্ত্বাবধানে সিজারিয়ান পরিচালনা করেন । এতে অ্যানেসথেসিয়া ছিলেন ডাঃ সৌমেন বড়ুয়া।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ রাজর্ষি নাগ বলেন, হাসপাতালে পর্যাপ্ত সরঞ্জামাদি থাকা স্বত্তেও ডাক্তার সঙ্কটের কারণে বহুবছর ধরে সিজারিয়ান অপারেশন বন্ধ ছিল।

তিনি আরো বলেন, সিজারের মাধ্যমে জন্ম নেয়া নবজাতক ও শিশু মা দু’জনেই সুস্থ আছেন।

নবজাতকের স্বজন বলেন, হাসপাতালে সিজার করায় আনেক কম টাকা লেগেছে। এখানে সিজার করাতে না পারলে বরিশাল নিয়ে যেতে হতো। কম পক্ষে ৫০ হাজার টাকা খরচ হতো। এ সুবিধা চালু করায় এলাকার বহু মানুষ উপকৃত হবে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, জুনিয়র কনসালটেন্ট(এনেসথেসিয়া) পদটি প্রায় ০৪ বছর ধরে শুন্য থাকার কারনে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ জিল্লুর রহমানের আন্তরিক প্রচেষ্টায় পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর জুনিয়র
কনসালটেন্ট(এনেসথেসিয়া) ডাঃ সৌমেন বড়ুয়া সপ্তাহে এক দিন অত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনেসথেসিয়া কার্যক্রম পরিচালনা করার ব্যবস্থা করেন , তারই ধারাবাহিকথায় অত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালটেন্ট(গাইনী) ডাঃ স্মিতা মুহুরী এবং মেডিকেল অফিসার ডাঃ কান্তা অধিকারী সিজারিয়ান কার্যক্রম পরিচালনা করেন । সিজারিয়ান অপারেশনে সহযোগী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র স্টাফ নার্স তন্দ্রা দেওয়ানজী, মিডওয়াইফ শাহানাজ পারভীন এবং ওটি এটেনডেন্ট মোঃ সালাউদ্দিন। এই সময় উপস্থিত থেকে সিজারিয়ান কার্যক্রমটি মনিটরিং করেন ডাঃ রাজর্ষি নাগ, আবাসিক মেডিকেল অফিসার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here