উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগিśকান্ডে ১৯টি দোকান ঘর অফিস পুড়ে ছাই

কায়সার হামিদ মানিক, উখিয়া (কক্সবাজার)
কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে ১৯টি বসত ঘর দোকান অফিস। শুক্রবার সকাল ১১ টায় রানśা ঘরের চুলা থেকে ডি-৫ ব্লকের অগিśকান্ডের সূত্রপাত হয়। এর মধ্যে ২টি দোকান ও ৬টি ঘর সম্পূর্ণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। বাকি ১৪টি রোহিঙ্গাদের ঘর আংশিক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে কেউ হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

অগিśকান্ডে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে ৫ লক্ষাধিক টাকা। উখিয়া ফায়ার সার্ভিসের দল পৌছতে দেরি করায় অগিśকান্ডে এসব ঘর গুলো পুড়ে ছাই হয়ে যায়। কুতুপালং আন-রেজিষ্টাট ক্যাম্পে সভাপতি মোঃ নুর বলেন উখিয়ার ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়ার পরও তারা ঘটনাস্থলে দেরি করায় ক্যাম্পের ১৯টি বসত ঘর, দোকান ও অফিস পুড়ে ছাই হয়ে যায়। উখিয়ার ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কমান্ডার এমদাদুল হক বলেন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দ্রুত পৌছে আগুন নিয়ন্ত্রনে না আনলে পুরো ক্যাম্প পুড়ে ছাই হয়ে যেত।

রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলো ঘনবসিত হওয়ায় আগুন লেগে তাড়াতাড়ি ছড়িয়ে পড়ে এ কারণে ১৯টি বসত ঘর দোকান অফিস অগিśকান্ডে পুড়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্থ রোহিঙ্গারা হলেন উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা রশিদ আহমদ, মোঃ কামাল, নুর বশর, জিয়াউল হক, রবি আল, আনোয়ার, আব্দুর রকিম, জুবাইদা, রোজিনা আক্তার, রশিদ আহমদ, মোঃ ইসমাইল, ইয়াছমিন, আনাস। অগিśকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন তাদের সমস্ত কিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। তারা এখন মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এনজিও সংস্থার সাহায্য প্রার্থনা করেন। কুতুপালং ক্যাম্প ইনচার্জ খলিলুর রহমান বলেন অগিśকান্ডের ঘটনা শুনেছি। কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলতে পারেনি। উখিয়া থানার তদন্ত ওসি নুরুল ইসলাম বলেন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগিśকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here