শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর - ২০২১
শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১
আরও

    ‘অতিষ্টায় নয় যুক্তি, ইবাদতেই মুক্তি’- নাজিম উদ্দিন

    “অতিষ্টায় নয় যুক্তি,ইবাদতেই মুক্তি”

    হঠাৎ করেই ছন্দপতন
    সব ব্যস্ততারা গিয়েছে বিশ্রামে
    একটাই ভাইরাস সৃষ্টি করছে ত্রাস
    ছড়িয়ে পড়ছে শহরে-গ্রামে

    কে না চাই তার বর্তমান সময়টুকু কাটুক আনন্দ – বিনোদনে।হয়ে যাক উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর ভবিষ্যৎ জীবনে।এই ব্যস্ত নগরীর মানুষ গুলো হয়েছে গৃহবন্দী।বের হতে হলেই দেখাতে হয় ভিন্ন ফন্দী। জীবন নামের তরীটির পিঠ ঠেকেছে কূলে, বয়ে যাবার শক্তি নেই স্রোতের প্রতিকূলে।

    মহামারীর প্রাদুর্ভাবে অবরুদ্ধ হয়েছে দেশের সব লোকালয়।পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে সবাই নিয়েছে কোয়ারেন্টাইনে আশ্রয়। সারাদিন ব্যস্ততার কারণে যারা পরিবারকে দিতে পারে নি সময়; তারা আজ ইচ্ছেমত সময় দিয়ে করছে আনন্দময়।

    তবে একটা মানুষ কতদিনই বা গৃহবন্দী থাকতে পারে?কত সময় সময়ই বা কাটাতে পারে নিজেকে ব্যস্ত না রেখে?

    চার দেয়ালের বন্দী জীবন
    আর কতই হবে ভালো
    ধীরে ধীরে অতিষ্ঠ হচ্ছে
    ঘরে জ্বালানো আলোও

    প্রায় সবাই কোয়ারেন্টাইন জীবনে অতিষ্ঠ।পাঁচটি মৌলিক চাহিদা পাওয়ার পরেও যেন বিষন্ন মনে হচ্ছে দিনরাত।

    তাহলে কি চার দেয়ালের কোয়ারেন্টাইন আমাদের পরকালের কথা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে? মনে করিয়ে দিচ্ছে কি কবরের সেই কঠিন মুহূর্তের কথা?
    আসুন একবার ভাবতে চেষ্টা করি অন্ধকার কবর নিয়ে; যেখানে অফুরন্ত সময় যাবে বয়ে।কোয়ারেন্টাইনেই যদি আমাদের পেরিয়ে যায় অতিষ্টতার চরম পর্যায়, তবে ভেবে দেখেছেন কি কেমন হবে আপনার-আমার মৃত্যু যাত্রায়?

    নির্জন অন্ধকারে ঘুঁচবে চারপাশ
    নিবে না কেউ খবর
    কিছুই থাকবেনা নিজের নিয়ন্ত্রণে
    তারই নাম যে ‘কবর

    আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে কারীমে ইরশাদ করেন-
    “কোনো ব্যক্তি যখন মারা যায়, তখন সে বরজখে প্রবেশ করে এবং পুনরুত্থান পর্যন্ত সেখানে থাকবে। ইরশাদ হয়েছে, ‘এর পর যখন তাদের কারো মৃত্যু আসবে, তখন সে বলবে, হে আমার রব! আমাকে ফিরিয়ে দাও। যাতে আমি যেগুলো রেখে এসেছি, সেগুলোর ব্যাপারে নেক আমল করতে পারি। কখনো নয়। এটি একটি কথার কথা, সে তা বলবে। আর মানুষের পশ্চাতে রয়েছে বরজখ—পুনরুত্থান পর্যন্ত।’ (সুরা : মুমিনুন, আয়াত : ৯৯-১০০)”

    সুতরাং পরকালের ঐ যাত্রায় আপনাকে আর সুযোগ দেওয়া হবে না পৃথিবীতে আসার।কোয়ারেন্টাইনে বেঁচে থাকার জন্য না হয় আমরা যাবতীয় মৌলিক চাহিদাগুলা জমিয়ে রাখলাম।তবে পরকালের সেই অন্তিম যাত্রার জন্য কতটুকুই ঈমান-আমল জমিয়েছি?কেমন উত্তর রেখেছি ঐ দুজাহানের মালিককে দেয়ার জন্য?

    স্বাভাবিক এই গৃহবন্দীতেই আমরা জর্জরিত।তবে কেমন হবে সেই সময় যখন রক্তিম সূর্যটা আপনার – আমার মাথার উপর হবে উপনীত। সুতরাং আসুন না দূর্যোগের এই ক্রান্তিবলয়ে নিজের কাছে আল্লাহর দেওয়া শ্রেষ্ট উপহার সময়কে উপযুক্ত কাজে লাগাই।রহমতের এই বারিধারায় নিজেকে বর্ষিত করি ইবাদতের বর্ষণে।গড়ে তুলি পরকালের নাজাতের উছিলা।গৃহবন্দী জীবনকে করে তুলি ইবাদতের কাফেলা।সর্বোপরি সকলের মজ্ঞল কামনায়, ইতি টানি আল্লামা ইকাবালের প্রেমের মর্সিয়ায়-

    তোমার বান্দা সেবক নামেই
    আমি খ্যাতিমান এই ধরায়
    শোনাই তবু এ দুখের কাহিনী
    মুক্ত তোমার রাজসভায়

    লেখ: নাজিম উদ্দিন
    বিবিএ(২য় বর্ষ)
    হাটহাজারী সরকারী কলেজ,চট্টগ্রাম

    9,705FansLike
    36FollowersFollow